রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ০৩:৫৬ পূর্বাহ্ন
/ কবি ও সাহিত্য
কথাসাহিত্যিক, গবেষক, বাংলা একাডেমির ফেলো ও সাবেক পরিচালক বশীর আলহেলাল আর নেই। ইন্না লিল­াহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে বার্ধক্যজনিত কারণে ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর। বিস্তারিত
শহর থেকে কিছুটা দূরে ছোট্ট একটি গ্রাম, গ্রামের নাম রতনপুর, সেই গ্রামে বাস করে রমজান মিয়া। তার দুই মেয়ে, বড় মেয়ে মান্না, ছোট মেয়ের নাম পান্না। বড় মেয়ের বিয়ের দুই
একদা এক বট গাছে বাসা বেধেছে ঘুঘু পাখি।বেশ উচু ডালে একটা ছোট্ট বাসায় দুই ঘুঘুর ছানাকে নিয়ে মা ঘুঘুর সুখেই কাটছিল দিন।রাস্তার ধারে বট গাছে সুন্দর একটা পরিবেশে থাকে তারা।ঘুঘুর
খোকা তুই কেমন আছিস জানতে ইচ্ছে করে। অনেক বছর হয়ে গেলো আছিস বহু দুরে। প্রতি রাতে ঘুম আসেনা তোর কথাটি ভেবে। বৃদ্ধা আশ্রম ভাল লাগেনা জানিনা মুক্তি কবে! আমাকে ছাড়া
কুটুম পাখি নিলুফার জাহান কুটুম পাখি আসছে দেখি তুষার মেরু ঠেলে শীতের আগে কুসুম বাগে আসছে বাসা ফেলে। পরিযায়ী পাখি ওরা সাগর দিয়ে পাড়ি বাংলাদেশে আসে ওরা শান্তির খোঁজে ভারি।
হয়তো একদিন আমিও আর দেখবোনা হেমন্তের শিশির ভরা সকাল, ভাঙবেনা ঘুম আর পাখিদের কলরবে। হয়তো একদিন আমিও আর আড়মোড়া ছেড়ে শীতের সকালে উঠবোনা মিষ্টি রোদের আবেশে। হয়তো একদিন আমিও আর
কবি মোঃ অভিজাল আলী   শেষ বেলার পথিক আমি চেয়ে আছি পশ্চিম আকাশে সাদা মেঘের দূরত্বে অবস্হান শুষ্কতার আবাস হতাশ করেছে মোরে সে দেখতে পায় না মনে । যেথায় প্রত্যাশার
আমি তোমার হৃদয়ের রানী হে রাজাধী রাজ,এ মম চিত্ত-বাণী। তোমা বিহনে আমি কেমনে বাঁচি? তাই জনমে জনমে তোমায় যাচি। আমার এ পোড়া দৃষ্টি খানি দেখতে চায় শুধু চাঁদ মুখখানি।