সোমবার, ১৬ মে ২০২২, ০৯:৪৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
শিরোনাম :
কুমারখালী উপজেলা ও পৌর বিএনপির প্রতীকী অনশন পালন কুষ্টিয়ায় পণ্যে পাটজাতদ্রব্য ব্যবহার না করার অপরাধে জরিমানা কিশোরগঞ্জে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ২৫টি পরিবারের ৮৩টি বসতঘর পুড়ে ভস্মীভ’ত কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় বিএনপির প্রতিকী অনশন পালিত কুষ্টিয়ায় র‌্যাবের অভিযানে গাঁজাসহ ২ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার বিজ্ঞান শিক্ষার প্রসার ঘটিয়ে জনগনকে জনসম্পদে পরিনত করতে হবে : ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ, এমপি ফতুল্লায় গার্মেন্টস শ্রমিকদের সড়ক অবরোধ পুলিশের লাঠিচার্জ, টিয়ারশেল নিক্ষেপ রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় থাকায় তালিকা হচ্ছে না নিয়ন্ত্রণহীন অপরাধীরা সাংবাদিকদের মধ্যে আর কোনো বিভক্তি থাকবে না : রুহুল আমিন গাজী কুষ্টিয়ায় তিন দিনেও খোঁজ মেলেনি অপহৃত মাদ্রাসা ছাত্রের, ফোনে মুক্তিপণ দাবি

৫৬৯ বিচারক এবং ১০০০ পুলিশ ও উকিলকে প্রশিক্ষণ দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র

ঢাকা অফিস / ২৪ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : সোমবার, ১৬ মে ২০২২, ০৯:৪৯ অপরাহ্ন

মানবপাচার বিষয়ক কর্মশালায় রাষ্ট্রদূত

মানবপাচার প্রতিরোধ বিষয়ক এক কর্মশালায় ঢাকাস্থ মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল আর মিলার জানিয়েছেন, গত পাঁচ বছরে পাচারকাজে জড়িত অপরাধীদের গ্রেফতার, বিচার ও শাস্তি প্রদানের লক্ষ্যে ৫৬৯ জন বিচারক এবং এক হাজারেরও বেশি পুলিশ, সরকারী আইনজীবী ও উকিলকে মানব পাচার বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিয়েছে মার্কিন উন্নয়ন সংস্থা ইউএসএআইডি। দূতাবাসের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, রাষ্ট্রদূত মিলার এবং আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক ঢাকার ট্রাইব্যুনাল বিচারকদের জন্য আয়োজিত বুধবার মানব-পাচার বিরোধী এক কর্মশালার উদ্বোধন করেন। ফাইট স্লেভারি অ্যান্ড ট্রাফিকিং ইন-পারসন্স (এফএসটিআইপি) প্রকল্প কর্তৃক আয়োজিত এই কর্মশালায় অর্থায়ন করেছে যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা (ইউএসএআইডি)। যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশের মধ্যে জোরদার সহযোগিতার ফলে মানব পাচারের (টিআইপি) বিচারের জন্য সাতটি বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠিত হয়েছে এবং মানব পাচার প্রতিরোধে পাঁচ বছরের একটি জাতীয় কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়িত হচ্ছে। রাষ্ট্রদূত মিলার বাংলাদেশের মানব পাচার প্রতিরোধ কর্মসূচিতে যুক্তরাষ্ট্রের সহায়তার বিষয়টি তুলে ধরেন। তিনি বলেন, মানব পাচার প্রতিরোধে আপনাদের সাথে সামিল হওয়া যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের অন্যতম অগ্রাধিকার। এই কর্মশালার মাধ্যমে মানব পাচার বন্ধে বাংলাদেশ সরকার, সুশীল সমাজ, বেসরকারি খাত ও পাচারের কবল থেকে মুক্ত হওয়া ব্যক্তিদের সাথে অংশীদারিত্বের প্রতি আমাদের অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত হয়েছে। রাষ্ট্রদূত মিলার বলেন, মানব পাচার হলো আধুনিক কালের দাসত্ব। আমাদের পৃথিবীতে এর কোনো স্থান নেই। কোথাও না। ২০১২ সালের মানব পাচার প্রতিরোধ ও দমন আইন থাকলেও আমেরিকা ও বাংলাদেশের আইন প্রয়োগকারী ও বিচার বিভাগীয় অংশীজনেরা স্বীকার করেন যে, মানব পাচারের বিচার ও অপরাধ প্রমাণের হার বাড়ানো প্রয়োজন। ইউএসএআইডি’র ১০ মিলিয়ন ডলার অর্থায়নপুষ্ট এফএসটিআইপি প্রকল্পের আওতায় বিচার বিভাগের কর্মকর্তা, সরকারী আইনজীবী ও বিচারকদের জন্য আয়োজিত এ সপ্তাহের কর্মশালার ন্যায় বিভিন্ন প্রশিক্ষণের মাধ্যমে আরো কার্যকরভাবে মানব পাচারকারীদের বিচার ও অপরাধ প্রমাণে বাংলাদেশকে সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে। মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্টের টিআইপি প্রতিবেদনে পরপর দুই বছর বাংলাদেশ পর্যায়-২’এ অবস্থান অর্জন করেছে। এর মাধ্যমে মানব পাচার বিরোধী লড়াইয়ে যুক্তরাষ্ট্র-বাংলাদেশ অংশীদারিত্বের ক্রমবর্ধমান সাফল্যের বিষয়টিই উঠে এসেছে। যুক্তরাষ্ট্রের সহায়তায় বাংলাদেশ সরকার পাচারকাজে জড়িত অপরাধীদের বিচারের জন্য বিচার বিভাগের সক্ষমতা জোরদার করেছে। গত পাঁচ বছরে ইউএসএআইডি পাচ শতাধিক বিচারক এবং হাজারেরও বেশি পুলিশ, সরকারী আইনজীবী ও উকিলকে মানব পাচার বিষয়ে প্রশিক্ষণ দিয়েছে জানিয়ে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রের কর্মসূচী ও তহবিলের আওতায় পাচারের কবল থেকে মুক্ত হওয়া ৩,০০০ জনেরও বেশি মানুষকে আশ্রয়, স্বাস্থ্যসেবা, পরামর্শ, জীবন-দক্ষতা ও ব্যবসা-উদ্যোগ বিষয়ক প্রশিক্ষণ এবং চাকরি প্রদানের জন্য স্থানীয় পর্যায়ের সংস্থাগুলোকেও সহায়তা প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, সচিব গোলাম সারওয়ার, বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট (জেএটিআই)- এর মহাপরিচালক বিচারপতি নাজমুন আরা সুলতানা, জেএটিআইর পরিচালক (প্রশিক্ষণ) জ্যেষ্ঠ জেলা ও দায়রা বিচারক মোঃ গোলাম কিবরিয়া প্রমূখ বক্তব্য রাখেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

এক ক্লিকে বিভাগের খবর