সোমবার, ১৬ মে ২০২২, ০৯:৫৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
শিরোনাম :
কুমারখালী উপজেলা ও পৌর বিএনপির প্রতীকী অনশন পালন কুষ্টিয়ায় পণ্যে পাটজাতদ্রব্য ব্যবহার না করার অপরাধে জরিমানা কিশোরগঞ্জে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ২৫টি পরিবারের ৮৩টি বসতঘর পুড়ে ভস্মীভ’ত কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় বিএনপির প্রতিকী অনশন পালিত কুষ্টিয়ায় র‌্যাবের অভিযানে গাঁজাসহ ২ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার বিজ্ঞান শিক্ষার প্রসার ঘটিয়ে জনগনকে জনসম্পদে পরিনত করতে হবে : ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ, এমপি ফতুল্লায় গার্মেন্টস শ্রমিকদের সড়ক অবরোধ পুলিশের লাঠিচার্জ, টিয়ারশেল নিক্ষেপ রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় থাকায় তালিকা হচ্ছে না নিয়ন্ত্রণহীন অপরাধীরা সাংবাদিকদের মধ্যে আর কোনো বিভক্তি থাকবে না : রুহুল আমিন গাজী কুষ্টিয়ায় তিন দিনেও খোঁজ মেলেনি অপহৃত মাদ্রাসা ছাত্রের, ফোনে মুক্তিপণ দাবি

কুষ্টিয়ার শ্রম অধিদপ্তরের দু’টি অফিস চলছে অর্ধেক জনবল দিয়ে

নিজস্ব প্রতিবেদক / ৬৯ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : সোমবার, ১৬ মে ২০২২, ০৯:৫৬ অপরাহ্ন

শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের শ্রম অধিদপ্তরের অধীনে কুষ্টিয়ায় আঞ্চলিক শ্রম দপ্তর এবং শ্রম কল্যাণ কেন্দ্র নামে দুটি অফিস বৃহত্তর কুষ্টিয়ার কুষ্টিয়া, মেহেরপুর, ঝিনাইদহ ও চুয়াডাঙ্গা জেলার শত শত প্রতিষ্ঠানিক ও অপ্রাতিষ্ঠানিক ক্ষেত্রে কর্মরত প্রায় ৪০ হাজার শ্রমিক ও কর্মচারীর মধ্যে শ্রম আইন ব্যাস্তবায়ন, চিকিৎসা সেবা, শ্রম আইন বিষয়ক প্রশিক্ষণ, শিল্প বিরোধ নিষ্পত্তি, ট্রেড ইউনিয়ন রেজিষ্ট্রেশন, সিবিএ নির্বাচন, অংশ গ্রহণকারী কমিটিসহ অন্যান্য সেবা প্রদানের কাজে নিয়োজিত। কিন্তু অফিস দুটিতে অধেক জনবল দিয়ে কোন রকমে খুড়িয়ে চলছে। আঞ্চলিক শ্রম দপ্তরের উপ পরিচালক এর পদটি শুরু থেকে চলতি দায়িত্ব দিয়ে চলছে। মোট ১২ জন জনবলের মধ্যে এখন আছে ৬ জন। নৈশ প্রহরী ও পরিচ্ছন্নতা ও অফিস সহায়ক এর মত জনগুরুত্বপূর্ণ পদগুলো দীর্ঘ ৪ বচ্ছর ধরে খালি। অপর দিকে শ্রম কল্যাণ কেন্দ্রের চিকিৎসা কর্মকর্তা পদটি কত বছর যাবতখালি তা অফিসের বর্তমান কর্মরতরা জানেন না। এ কেন্দ্রেরও ১২ টি পদের মধ্যে বর্তমান আছেন ৪ জন। জনসংখ্যা ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা, পরিবার কল্যাণ পরিদর্শীকার মত জনগুরুত্বপূর্ণ পদ সহ অফিস সহকারী, অফিস সহায়ক, নৈশ প্রহরী ও পরিচ্ছন্নতাকর্মীর পদগুলো শূন্য রয়েছে। উল্লেখ্য যে, শ্রম পরিদপ্তর থেকে বিগত ২০১৭ সনের নভেম্বর মাসে অধিদপ্তরে উন্নীত করা হয়। সরকারি বিধিমতে অধিদপ্তরে হওয়ার সাথে সাথে জনবল নিয়োগের জন্য নতুন নিয়োগ বিধি অনুমোদন করে জনবল নিয়োগ প্রদানের কথা। কিন্তু শ্রম অধিদপ্তরের কতিপয় দূর্নীতিবাজ কর্মকর্তা ও শ্রম মন্ত্রণালয়ের কতিপয় অসাধু ব্যক্তির যোগসাজশে দীর্ঘ ৪ বছর ধরে নিয়োগ বিধি অনুমোদন ও গেজেট প্রকাশে অন্তরা সৃষ্টি করেছে বলে নাম প্রকাশে অপারগতা জানিয়ে একজন কর্মকর্তা বলে। চিকিৎসাসেবা, শ্রমিক প্রশিক্ষণ ও ট্রেড ইউনিয়ন সংক্রান্ত সেবা প্রদানের বিষয় টি নিয়ে উপ পরিচালক এর দায়িত্বে নিয়োজিত কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিবরনের বাস্তবতা স্বীকার করেন। উক্ত সেবা প্রদান ও অফিস পাহারা ও পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার বিষয়টি অপরিহার্য বলে তিনি জানান। কিন্তু নিয়োগ বিধি না থাকায় জনবল নিয়োগ করা সম্ভবপর হচ্ছে না বলে তিনি জানান। এলাকায় শ্রম অধিদপ্তরের পরিসেবা যথাযথভাবে পালনের জন্য শ্রম অধিদপ্তরের নিয়োগ বিধি জরুরি ভিত্তিতে অনুমোদন ও শূন্য পদে জনবল নিয়োগ প্রদানের জন্য সংশ্লিষ্ট মহলের প্রতি এ এলাকার সর্বমহলের দূঢ প্রত্যাশা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

এক ক্লিকে বিভাগের খবর