শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১২:৫১ অপরাহ্ন

প্রশাসন ভবনে তালা দিয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

বেরোবি প্রতিনিধি / ২৪ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১২:৫১ অপরাহ্ন

রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে (বেরোবির) বৈধ বিভাগীয় প্রধানের দাবিতে প্রসাশনিক ভবনে তালা লাগিয়ে অবস্থান কর্মসূচী পালন করছে রসায়ন বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। আন্দোলনকারীরা জানিয়েছেন, বিভাগে আইন অনুযায়ী বিভাগীয় প্রধান না দেয়া পর্যন্ত এ অবস্থান কর্মসূচী অব্যাহত থাকবে।

রবিবার বেলা ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রসাশনিক ভবনের দুই ফটকে তালা লাগিয়ে দক্ষিণ ফটকের সামনে অবস্থান কর্মসূচী পালন করছেন তারা। অবস্থান কর্মসূচীতে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের জেষ্ঠ্য শিক্ষক ও সাবেক বিভাগীয় প্রধান এইচ এম তারিকুল ইসলাম, ড. বিজন মোহন চাকী ও অন্যান্য শিক্ষকগণ এবং রসায়ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা। রসায়ন বিভাগের জেষ্ঠ্য শিক্ষক এইচ এম তারিকুল ইসলাম বলেন, রসায়ন বিভাগে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন লঙ্ঘন করে অন্যায়ভাবে একজনকে বিভাগীয় প্রধান নিয়োগ করা হয়েছে। তার একের পর এক রীতিবিরুদ্ধ কাজে আমরা অতিষ্ঠ। আমরা যদি বিভাগীয় প্রধান পরিবর্তন করতে না পারি তাহলে সমস্যা সমাধান করা সম্ভব হবে না। তিনি বলেন, প্রয়োজন হলে প্রসাশনিক ভবন থেকেই বিভাগের সকল কর্যক্রম পরিচালনা করা হবে। তবুও আমরা দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত কর্মসূচী পালন করবো। ড. বিজন মোহন চাকী বলেন, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, রংপুর আইন ২০০৯ (২০০৯ সনের ২৯ নং আইন) এর ২৮(৩) বিধি বলছে- যদি কোন বিভাগে অধ্যাপক না থাকেন তাহা হইলে ভাইস-চ্যান্সেলর সহযোগী অধ্যাপকের মধ্য হইতে জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে বিভাগীয় প্রধান নিযুক্ত করিবেনঃ তবে শর্ত থাকে যে, সহযোগী অধ্যাপকের নিম্নের কোন শিক্ষককে বিভাগীয় প্রধান পদে নিযুক্ত করা যাইবে না।

বিজন মোহন বলেন, এই আইনলঙ্ঘন করে একজন সহকারী অধ্যাপককে গত বছরের ১৬ জুন নিয়োগ দেয়া হয়েছে। শুধু তাই নয় শিক্ষার্থীদের ফরম-ফিলাপ, পরীক্ষার ফলাফল প্রণয়নসহ নানা কাজে আমাদের বাধাগ্রস্থ করতেছে। তাই বিভাগীয় প্রধান পরিবর্তনের দাবিতে আমারা এ অবস্থান কর্মসূচী পালন করছি।বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর আতিউর রহমান বলেন, তারা তাদের একটা দাবি নিয়ে প্রশাসনিক ভবন অবরোধ করেছে। আমি অনুরোধ করেছি তারা যেন প্রশাসনিক ভবনের একাডেমিক কাজে বাধা না দেয়। বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. হাফিজুর রহমান সেলিম বলেন, বিষয়টি সমাধানের জন্য চেষ্টা করা হচ্ছে। বিভাগের শিক্ষকদের নিয়ে আলোচনায় বসা হয়েছে। তাদেরকে প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। সে অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নিয়ে তারা জানাবে।

জি/হিমেল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

এক ক্লিকে বিভাগের খবর