সোমবার, ১২ এপ্রিল ২০২১, ১২:৩৯ পূর্বাহ্ন

বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাংচুরের প্রতিবাদে মানব বন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক: / ১২৬ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : সোমবার, ১২ এপ্রিল ২০২১, ১২:৩৯ পূর্বাহ্ন

কুষ্টিয়া শহরের পাঁচ রাস্তার মোড়ে নির্মানাধীণ বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভেঙ্গে ফেলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ আজও অব্যাহত রয়েছে। “ইতিহাস ঐতিহ্য রক্ষায় ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধসহ মৌলবাদি সাম্প্রদায়িক শক্তির আস্ফালন রুখে দাঁড়ানোর আহ্বানে মানব বন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার বেলা ১১টায় কুষ্টিয়া পাবলিক লাইব্রেরীর সামনে “প্রগতিশীল রাজনৈতিক সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন কুষ্টিয়ার ব্যানারে” বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল হক বুলবুলে সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই প্রতিবাদি মানব বন্ধন সমাবেশে কুষ্টিয়ার বিভিন্ন রাজনৈতিক সামাজিক ও সাস্কৃতিক সংগঠনের নেতাকর্মীরা অংশ গ্রহন করে।

এসময় বক্তারা বলেন, দেশব্যাপী মহান মুক্তিযুদ্ধে পরাজিত শক্তি সাম্প্রদায়িক মৌলবাদি রাজাকার আলবদর আলসামস বাহিনীর দোসররা আরও বেশী আস্ফালনে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। তারা স্বাধীনতার লাল পতাকাকে খামছে ধরেছে। দেশব্যাপী এরা মুর্তি ধ্বংসের ধুয়া তুলে আবহমানকালের বাঙালী শিল্প, সংস্কৃতির ঐতিহ্য ভাস্কর্য্য শিল্পকে গ্রাস করার পায়তারা করছে। দেশের ধর্মপ্রতিষ্ঠান মসজিদ মাদ্রাসায় আগত ধর্মপ্রান মানুষকে উস্কে দিয়ে সর্বশেষ মহান স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য্য ধবংস ও উচ্ছেদের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। তাই অবিলম্বে ধর্মের লেবাসধারী এসব সাম্প্রদায়িক মৌলবাদি জঙ্গী সংগঠনের ধর্মভিত্তিক রাজনীতির মূল উৎপাটনে আইন করে নিষিদ্ধ করাসহ বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য অপসারণের হুমকিদাতা, শিল্প-সংস্কৃতি, ইতিহাস-ঐতিহ্য, সভ্যতা, মুক্তিযুদ্ধ, সংবিধান, নারী বিদ্বেষী উস্কানীদাতা রাজনৈাতিক মোল্লাদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করা এখন সময়ের দাবি হয়ে উঠেছে। এসময় নেতৃবৃন্দ অভিযোগ করেন, গত শুক্রবার জুম্মার নামাজে খুৎবা পাঠে বিভিন্ন মসজিদে ভাস্কর্য অপসারণের দাবিতে উস্কে দেয়া হয় সরল প্রান মুসুল্লিদের।

বক্তরা আরও বলেন, ঘটনার প্রতিবাদে বের হওয়া বিক্ষোভ মিছিল থেকে একটি রাজনৈতি দলের দলীয় কার্যালয়, একটি পরিবহণ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন জায়গায় হামলা-ভাংচুর এবং ঘটনাস্থল ভাস্কর্য চত্বরে সুরক্ষিত পুলিশ বেষ্টনীর মধ্যে একদল সন্ত্রাসী প্রকাশ্যে গুলি বর্ষণ করে জনমনে চরম আতংক সৃষ্টি করে বীরদর্পে চলে যায় অথচ পুলিশ নিরব দর্শকের ভুমিকা পালন করার মধ্য দিয়ে শহরবাসীর জানমালকে নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে ঠেলে দিয়েছে। এসব অগনতান্ত্রিক সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে অবিলম্বে জড়িতদের গ্রেফতারসহ বিচারের দাবি করেন নেতৃবৃন্দ।
বক্তব্য রাখেন, জেলা জাসদের সভাপতি হাজি গোলাম মহসিন, ওয়ার্কার্স পাটির কুষ্টিয়ার জেলার সাধারণ সম্পাদক কমরেড হাফিজ সরকার, জেলা বাসদের আহ্বায়ক কমরেড শফিউর রহমান শফি, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব আলম আরা জুঁই, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক শাহীন সরকার, বীর মুক্তিযোদ্ধা রবীন্দ্রনাথ সেন, মজিবুর রহমান, প্রবীণ হিতৈষীর সাধারন সম্পাদক খাদেমুল ইসলাম, উদিচীর সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক গোপা সরকার, চারণ সংগঠন প্রভাষক আব্দুল মান্নান, নারী উদ্যোক্তা তানজিমা রহমান, সিপিবি নেতা কমরেড নীল কমল বিশ^াস, সিডিএল নির্বাহী পরিচালক আক্তারী বেগম, সঞ্চলনা করেন সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন কেন্দ্রীয় সদস্য কারশেদ আলম।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

এক ক্লিকে বিভাগের খবর