রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:১৬ অপরাহ্ন

কুষ্টিয়া ডিবি’র পারফরম্যান্সে পুলিশ সুপারের পুরস্কার

নিজস্ব প্রতিবেদক: / ২৬১ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:১৬ অপরাহ্ন

কুষ্টিয়ায় সফল অভিযান জেলা পুলিশ সুপার এস এম তানভীর আরাফাত এর নিকট থেকে এক লক্ষ টাকা পুরস্কার গ্রহণ করলেন ডিবি পুলিশের সদস্যবৃন্দরা। আজ সকালে জেলা পুলিশ সুপার এর কার্যালয়ে ডিবি পুলিশ সদস্যদের হাতে একলক্ষ টাকা তুলে দেন তিনি।
গরু ব্যবসায়ী, সাধারণ ব্যবসায়ী, ভদ্র মহিলাদের টার্গেট করে ডিবি পুলিশ-র‌্যাব ও বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার পরিচয় দিয়ে অভিনব কায়দায় প্রতারণা পূর্বক ছিনতাই করে আসছিল সংঘবদ্ধ চক্র। এরই ধারাবাহিকতায় গত ১৪/১১/২০২০ তারিখ বেলা অনুমান ১৪:৫১ ঘটিকার সময় কুষ্টিয়া মডেল থানাধীন কুষ্টিয়া ফিলিং স্টেশনের পশ্চিম দিকে চৌড়হাস জামে মসজিদের গলির পার্শ্বে ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে প্রতারণা পূর্বক জনৈক মোঃ মারুফ হোসেন(২৫), পিতা-আব্দুস সামাদ, সাং-কেষ্টপুর, থানা-মিরপুর, জেলা-কুষ্টিয়ার নিকট হতে গরু বিক্রির ৪৫,০০০/- হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। এসংক্রান্তে কুষ্টিয়া মডেল থানার মামলা নং-৩৪, তারিখ-১৫/১১/২০২০ খ্রিঃ, ধারা-১৭০/৪০৬/৪২০ পেনাল কোড রুজু হয়।
জনৈক মোঃ সিরাজুল ইসলাম, পিতা-মোঃ বাবু শেখ, সাং-হাউলিকেউটিল, থানা-গোয়ালন্দ, জেলা-রাজবাড়ী উভয় পিতা ও পুত্র কুষ্টিয়া জেলার বালিয়াপাড়া গরুর হাটে গরু ক্রয়ের উদ্দেশ্যে কুষ্টিয়া বাস টার্মিনালে বাস হতে নেমে পায়ে হেটে চৌড়হাস মোড়ে যাওয়ার সময় ১৪/১১/২০২০ তারিখ সকাল ১০:০০ ঘটিকার সময় কুষ্টিয়া মডেল থানাধীন চৌড়হাস কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের সামনের রাস্তায় ব্রিজের উপর পৌঁছলে অজ্ঞাতনামা ০৩ জন ব্যক্তি নিজেদেরকে ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে তাদের নিকট হতে ১,৩২,০০০/- টাকা প্রতারণামূলক ভাবে ছিনিয়ে নেয়। এসংক্রান্তে কুষ্টিয়া মডেল থানার মামলা নং-৩৫, তারিখ-১৫/১১/২০২০ খ্রিঃ, ধারা-১৭০/৪০৬/৪২০ পেনাল কোড রুজু হয়।
জনৈক মিসেস বিলকিস(৫০), স্বামী-মোঃ আবু বক্কর শেখ, সাং-মঙ্গলবাড়িয়া, থানা ও জেলা-কুষ্টিয়া (বর্তমানে সাং-জুগিয়া, কদমতলা, লোটন সাহেবের বাড়ির ভাড়াটিয়া, থানা ও জেলা-কুষ্টিয়া) ২৪/১১/২০২০ তারিখ তার অসুস্থ্য চাচাতো ভাই মোঃ মাসুদুর রহমান কে দেখার জন্য নিজ বাসা হতে রওনা হয়ে দুপুর ১৪:১৫ ঘটিকার সময় ছয় রাস্তার মোড়, রূপালী ব্যাংকের গলির ভিতর পৌঁছে পায়ে হেঁটে চাচাতো ভাইয়ের বাসায় যাওয়ার সময় অজ্ঞাতনামা ০২ জন লোক মিসেস বিলকিস এর নিকট গিয়ে নিজেদেরকে র‌্যাব-ডিবি পুলিশের পরিচয় দিয়ে বলে যে, “গলির মধ্যে সামনের দিকে টাকা-পয়সা সোনা-দানা ধরা পড়েছে আপনি সামনে যেতে পারবেন না। আপনি দাঁড়ান আপনার কাছে কি কি আছে আপনি আমাদের কাছে জমা দেন। আমাদের অফিস কাছে আমি একটা কার্ড দিচ্ছি” বলে জানায়। তখন বিলকিসের সামনে তাদের দলের অপর একজন ব্যক্তি গিয়ে একই পরিচয় দেয়। অতঃপর ০৩ জন অজ্ঞাতানামা ব্যক্তি তাকে ভয়ভীতি দেখিয়ে তার হাতে থাকা চার আনা ওজনের স্বর্ণের আংটি (যার মূল্য অনুমান ২০০০০/-) টাকা, আট আনা ওজনের হাতের একজোড়া স্বর্ণের চুড়ি (যার মূল্য অনুমান ৪০০০০/-) টাকা এবং নগদ ২২০০/-(দুই হাজার দুইশত) টাকা দিতে বাধ্য করেন। মিসেস বিলকিস ভয় পেয়ে ওখানে দাঁড়িয়ে থাকেন। পরবর্তীতে তিনি দেখতে পান যে, রাস্তা পার হয়ে দাঁড়ানো একটি কালো প্রাইভেট গাড়ীতে উঠে অজ্ঞাতনামা ৩ জন ছিনতাইকারী দ্রুত চলে যাচ্ছে। এ সংক্রান্তে কুষ্টিয়া মডেল থানার মামলা নং-৫৫, তাং-২৪/১১/২০২০ খ্রিঃ, ধারা-৩৯২ পেনাল কোড রুজু হয়েছে।
উপরোক্ত ০৩ টি ঘটনার পর জনাব এস এম তানভীর আরাফাত, পিপিএম(বার), পুলিশ সুপার, কুষ্টিয়ার দিক-নির্দেশনায় জনাব মোঃ ফরহাদ হোসেন খাঁন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, জেলা বিশেষ শাখা, কুষ্টিয়ার নেতৃত্বে কুষ্টিয়া জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) সংঘবদ্ধ অপরাধী চক্র সনাক্ত ও গ্রেফতারের জন্য অভিযান পরিচালনা করে ২৯/১১/২০২০ তারিখ রাত্র অনুমান ২১:৩০ ঘটিকার সময় কুষ্টিয়া জেলার ভেড়ামারা থানাধীন বারমাইল এলাকা হতে অনুরূপ ঘটনা ঘটানোর প্রস্তুতিকালে অপরাধী চক্রের মূলহোতা ১। মোঃ আরিফুল ইসলাম (৪২), পিতা-মৃত জমির খাঁন (অবসরপ্রাপ্ত নায়েব সুবেদার), মাতা-রোকেয়া বেগম, সাং-৫৪/১০, সাভার ব্যাংক কলোনী, ওয়ার্ড নং-৫, থানা-সাভার, জেলা-ঢাকা, ২। মোঃ খোকন মিয়া @ জামাল মিয়া(৫৫), পিতা-তোফাজেল হক@ নুরুল হক, মাতা-আয়েশা খাতুন, সাং-কালামিয়ার বাড়ী, ইউনিয়ন-কাদিরপুর, (ভোটার এরিয়া-গয়েছপুর), থানা-বেগমগঞ্জ, জেলা-নোয়াখালী, এপি সাং-২৫২/২৫৩ জুরাইন, থানা-কদমতলী, জেলা-ডিএমপি, ঢাকা, ৩। মোঃ হারুন @ বাবু মিয়া(৪২), পিতা-আব্দুর রব @ মাজেদ মিয়া, মাতা- ইয়ারুন নেসা, সাং মোল্লা কান্দি,থানা-মুন্সিগঞ্জ সদর, জেলা-মুন্সিগঞ্জ,(বাড়ী নদী গর্ভে বিলিন), এপি সাং-কোলারহাট, থানা-রাজবাড়ী সদর, জেলা-রাজবাড়ী’দেরকে একটি ব্ল কালো রংয়ের প্রাইভেটকার ঢাকা মেট্রো-গ-১৪-৮৫৯৪, সহ আটক করেন। তাদের নিকট হতে (১) বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর লোগো যুক্ত টি-শার্ট ০১টি, (২) স্পেশাল ফোর্স কমান্ড লোগো যুক্ত টি-শার্ট ০১ টি, (৩) নিরাপত্তা বাহিনীর ব্যবহৃত বুট ০২ জোড়া, (৪) র‌্যাব এর ব্যবহারিত ক্যাপের ন্যায় ০১টি কালো ক্যাপ, (৫) ওয়াকিটকি সেট ০১টি, (৬) হ্যান্ডকাপ (চাবি সহ) ০১ জোড়া, (৭) দেশীয় তৈরী তরবারি ০১টি, (৮) ডেগার ০১টি, (৯) টিপ চাকু ০১টি, (১০) বিদেশী পিস্তল ০২টি, (১১) ম্যাগজিন-০২ টি, (১২) গুলি ০৪ রাউন্ড, (১৩) ফেন্সিডিল ১১ বোতল, (১৪) স্বর্ণ সদৃশ্য বালা ০২টি, (১৫) স্বর্ণ সদৃশ্য আঁকাবাঁকা ব্রেসলেট ০২টি, (১৬) স্বর্ণ সদৃশ্য চুড়ির পাত ০২টি, (১৭) সোনালী রংয়ের ঘড়ি ০১টি, (১৮) কালো রংয়ের ওয়ালেট ০২ টি, (১৯) মোবাইল হ্যান্ডসেট ০৪ টি, (২০) নগদ ৯২,১৩৩/- টাকা উদ্ধার করেন। আটককৃত ছিনতাইকারীদের জিজ্ঞাসাবাদে জানায় যে, তারা প্রাইভেট কার-এ বিভিন্ন বাহিনীর পোষাক, বুট, ওয়াকিটকি সেট, অস্ত্র-গুলি ব্যবহার করে গরু ব্যবসায়ী, সাধারণ ব্যবসায়ী, ভদ্র মহিলাদের টার্গেট করে ডিবি পুলিশ, র‌্যাব, গোয়েন্দা সংস্থাসহ অন্যান্য বাহিনীর পরিচয়ে প্রতারণার মাধ্যমে কুষ্টিয়া, যশোর, ঝিনাইদহ, পাবনা, রাজশাহী, বগুড়া, টাংগাইল, ময়মনসিংহ, বরিশাল, ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলায় দীর্ঘ দিন ধরে ছিনতাই/ডাকাতি করে আসছিল। আসামীদের বিরুদ্ধে ১। ভেড়ামারা থানায় মামলা নং-২০, তাং-৩০/১১/২০২০ খ্রিঃ ধারা-ঞযব চবহধষ ঈড়ফব, ১৮৬০ এর ৩৯৯/৪০২, ২। ভেড়ামারা থানায় মামলা নং-২১, তাং-৩০/১১/২০২০ খ্রিঃ ধারা-ঞযব অৎসং অপঃ, ১৮৭৮ এর ১৯(অ)/১৯(ভ), ৩। ভেড়ামারা থানায় মামলা নং-২২, তাং-৩০/১১/২০২০ খ্রিঃ ধারা-মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০১৮ এর ৩৬(১) সারণির ১৪(খ) ধারায় পৃথক পৃথক মামলা দায়ের হয়েছে।

পুলিশ সুপার এস এম তানভীর আরাফাত বলেন পুলিশ জনগণের বন্ধু। জনগণের পাশে সবসময় সাথে থাকবে। আর ভালো কাজের জন্য আছে পুরস্কার।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

এক ক্লিকে বিভাগের খবর