মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ০২:৪১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
শিরোনাম :
কুমারখালী উপজেলা ও পৌর বিএনপির প্রতীকী অনশন পালন কুষ্টিয়ায় পণ্যে পাটজাতদ্রব্য ব্যবহার না করার অপরাধে জরিমানা কিশোরগঞ্জে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ২৫টি পরিবারের ৮৩টি বসতঘর পুড়ে ভস্মীভ’ত কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় বিএনপির প্রতিকী অনশন পালিত কুষ্টিয়ায় র‌্যাবের অভিযানে গাঁজাসহ ২ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার বিজ্ঞান শিক্ষার প্রসার ঘটিয়ে জনগনকে জনসম্পদে পরিনত করতে হবে : ব্যারিস্টার সেলিম আলতাফ জর্জ, এমপি ফতুল্লায় গার্মেন্টস শ্রমিকদের সড়ক অবরোধ পুলিশের লাঠিচার্জ, টিয়ারশেল নিক্ষেপ রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় থাকায় তালিকা হচ্ছে না নিয়ন্ত্রণহীন অপরাধীরা সাংবাদিকদের মধ্যে আর কোনো বিভক্তি থাকবে না : রুহুল আমিন গাজী কুষ্টিয়ায় তিন দিনেও খোঁজ মেলেনি অপহৃত মাদ্রাসা ছাত্রের, ফোনে মুক্তিপণ দাবি

করোনা আতঙ্কের পর কুষ্টিয়া হাসপাতালে রোগীর উপচে পড়া ভীড়

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ / ২৬৪ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ০২:৪১ অপরাহ্ন

করোনা ভাইরাসের কারণে স্বাভাবিক জীবন ছন্দ পতন ঘটেছিল কিন্তু হঠাৎ কিছুদিন আগে থেকে দেখছি হাসপাতালে করোনার ভয় উধাও। চিরচেনা সেই কুষ্টিয়া হাসপাতালে রোগীর ভীড় দেখা যাচ্ছে। বৃহস্পতিবার (১৯/১১/২০২০) সকাল সাড়ে এগারোটায় কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায় শিশু ওয়ার্ডের সামনে বারান্দায় উপচে পড়া ভীড়। পা ফেলার জায়গা নেই। সেখানে পুরুষ মেডিসিন ওয়ার্ডের রোগী ভর্তি রয়েছে। ওয়ার্ডে বেড না পেয়ে বারান্দায় চিকিৎসা নিচ্ছে রোগীরা। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ তাপস কুমার সরকার জানান ২৫০ বেডের হাসপাতালে আজ সকাল পর্যন্ত ভর্তি রোগী রয়েছে ৪৫৭ জন। এর বেশিরভাগ রোগী মেডিসিনের রোগী। এপ্রিল/মে মাসে রোগী ছিল ২শ এর কাছাকাছি। এপ্রিল/মে মাসে করোনা আতঙ্কে রাস্তাঘাটে কমেছে ছিল যানবাহন। লোকসমাগম কমে গিয়েছিল সর্বত্র কিন্তু জুলাই মাস থেকে আবারো বেড়েছে যানবাহন ও লোকসমাগম। মিছিল মিটিং প্রশাসনিক ভাবে নিসিদ্ধ থাকলেও মানছে না রাজনৈতিক কিছু নেতাকর্মী।
এদিকে বহির্বিভাগে নেই নিত্যদিনের ভিড়। আগে হাসপাতালে একটি সিট পেতে ধরনা দিতে হয়েছে দিনের পর দিন। কিন্তু এখন অধিকাংশ ওয়ার্ড প্রায় ফাঁকা। (২৬ মার্চ) বেলা সাড়ে ১২ টার দিকে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।

হাসপাতালের মেডিসিন ওয়ার্ডের সিনিয়র এক নার্স জানান, এই হাসপাতালে ২৫০ শয্যার জায়গায় দ্বিগুণ রোগী ভর্তি থাকে। চিকিৎসা দিতে হিমশিম লেগে যেতো। কিন্তু মাঝে তিন মাস তেমন কোন রোগী ছিল না। এখন আবার রোগীর চাপ বেড়েছে। তিনি আরো বলেন, আমরা এখন করোনা আতঙ্কে রয়েছি।

এ বিষয়ে কুষ্টিয়া ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ মোসাঃ নূরুন-নাহার বেগম জানান, আজ মোট ১২টা করোনা রোগী ভর্তি রয়েছে। গত বুধবার ছিল ৪ টা। করোনা জন্য ১২ টা ডাক্তার এবং ৪৮ না সেবিকা পেয়েছি। ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারী সংকটে ও গ্লাপস সংকটে রয়েছি। করোনা আতঙ্কে হাসপাতালে এপ্রিল/মে মাসে রোগী কম থাকলেও আবার নভেম্বর রোগীর সংখ্যা বাড়েছে। আজ প্রায় ৫শ রোগী ভর্তি রয়েছে। যেভাবে করোনা রোগী বাড়ছে এতে আমরাও আতঙ্কিত।

কুষ্টিয়া জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, গত এক সপ্তাহ জুড়ে করোনা রোগী একটু বেড়েছে তবে আরো বেশি বাড়ার আশঙ্কা রয়েছে। গত বুধবার করোনা রোগী সনাক্ত হয়েছে ৭ জন। আজ বৃহস্পতিবার (২৯/১২/২০২০) পর্যন্ত মোট করোনা সনাক্ত হয়েছে ৩ হাজার ৫০৯জন। হাসপাতালের এখন করোনা রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৪ জন। তিনি আরো বলেন, করোনার টিকা না বেড় হওয়া পর্যন্ত সাবধানে থাকতে হবে। মাস্ক ব্যবহার করতে হবে, নিরাপদ দূরত্বে বজায় রাখতে হবে। আমরা মাস্ক ব্যবহার না করাই জেল জরিমানা করছি। তবে নিজে থেকে সচেতন হওয়া উচিত। জেনারেল হাসপাতালসহ সকল উপজেলা হাসপাতালে বেড প্রস্তুত রাখা হয়েছে। আলাদা আইসুলেশন ওয়ার্ড, সেবিকা, রোগী পরিবহনের জন্য আলাদা অ্যাম্বুলেন্স প্রস্তুত রয়েছে।

কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক আসলাম হোসেনের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, মাক্স ছাড়া কোন গেদারিং হলেই সেখানে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

এক ক্লিকে বিভাগের খবর