বুধবার, ০৩ মার্চ ২০২১, ০১:৪৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
শিরোনাম :
ভিক্ষুকের টাকা ছিনতাই কুষ্টিয়ায় মুক্তি নারী ও শিশু উন্নয়ন সংস্থার উদ্যোগে কুষ্ঠ রোগীদের আর্থিক সহায়তা প্রদান কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে সেতু নির্মানের মেয়াদ শেষ হলেও অনিয়মের দায়ে ৫টি পাইলিংয়ে করার পর কাজ বন্ধ কুষ্টিয়ার উপকারাগার ৪০ বছরেও কয়েদীর মুখ দেখেনি ধর্ষিত কিশোরী অন্তঃসত্ত্বা, গর্ভপাত, গ্রেপ্তার ১ নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে রাজশাহীতে বিএনপির সমাবেশ শুরু বিএনপির কমিটমেন্ট নিয়ে জনগণ প্রশ্ন তুলছে: ওবায়দুল কাদের রিমান্ডে নিয়ে ছাত্রদল নেতাদের পৈশাচিক নির্যাতন চালানো হচ্ছে : রিজভী রাজশাহীতে দূরপাল্লার বাস চলাচল বন্ধ, চরম দুর্ভোগে যাত্রীরা স্থানীয় নির্বাচনেও অনিয়মের মডেল: মাহবুব তালুকদার

কুষ্টিয়ায় বিয়ের দুই মাসেই মোটরসাইকেল না পেয়ে স্ত্রীকে তাড়িয়ে দিলেন স্বামী রাজু

নিজস্ব প্রতিবেদক / ৭৯ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : বুধবার, ০৩ মার্চ ২০২১, ০১:৪৯ পূর্বাহ্ন

কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে বিয়ের দুই মাসের মাথায় যৌতুকের দাবীতে রাতভর স্ত্রী নির্যাতনের শিকার হয়ে বাবার বাড়িতে পালিয়ে চলে আসার অভিযোগ পাওয়া গেছে। খোকসা উপজেলার বেতবাড়িয়া ইউনিয়নের জাগলবা গ্রামের মনছের আলীর ছেলে যৌতুক লোভী রাজু আহাম্মেদের বিরুদ্ধে ইতিমধ্যে কোর্টে মামলা করেছে তার স্ত্রী।

জানা যায়, যদুবয়রার কামরুল ইসলামের মেয়ে শ্যামা নিশাতের সাথে রাজুর ১২/০৭/২০২০ তারিখে পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের সময় উভয় পরিবারের সম্মতিতে কোন দেনা পাওনা ছাড়া বিয়ে সম্পন্ন হবার দুইমাসের মাথায় রাজুর প্রকৃত চেহারা প্রকাশ পায়। সে তার স্ত্রীকে প্রতিনিয়ত এপাসি আরটিআর মোটরসাইকেলের জন্য চাপ দিতে থাকে। এদিকে নিশাত তার বাবাকে বিষয়টি জানালে হতদরিদ্র বাবা দিশেহারা হয়ে পড়েন। অপরদিকে মোটরসাইকেল না পেয়ে রাজু তার স্ত্রীর উপর নির্যাতন শুরু করে এবং নিশাত একপর্যায়ে পালিয়ে খালার বাড়িতে চলে আসে। নিশাতের খালাতো ভাই জাকির রাজুকে বোঝানোর জন্য মোবাইলে কল করলে রাজু স্পষ্ট জানিয়ে দেয় সংসার করতে হলে তাকে মোটরসাইকেল দিতে হবে এবং একপর্যায়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। কথাগুলো ভয়েস রেকর্ডিং এ সংরক্ষণ রয়েছে। নিশাত চলে আসার পর তার পরিবার থেকে ৩/১০/২০২০ তারিখে রাজুকে ডেকে এনে পারিবারিক ভাবে বোঝানোর পরও একই কথা জানায় সংসার করতে হলে মোটরসাইকেল দিতে হবে এই বলে সে চলে যায়৷

নিশাতের বাবা কামরুল ইসলাম বলেন, মোটরসাইকেল দেবার তার সামর্থ্য নাই যেকারণে তিনি ২০ অক্টোবর কোর্টে মামলা করেছেন। কিন্তু রাজুর বাবা ২১ অক্টোবর তাকে মোবাইল ফোনে বিভিন্ন ভাবে হুমকী দিচ্ছেন মামলা তুলে নেবার জন্য। এবং দেনমোহরের ২ লাখ টাকা না দিয়ে কোর্টে ৫ লাখ টাকা খরচ করারও হুমকী প্রদান করেন বলে তিনি জানান। তিনি আরো জানান রাজুর বাবার প্রতিটি কথা ভয়েস রেকর্ডিং এ সংরক্ষণ রয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

এক ক্লিকে বিভাগের খবর